প্রবন্ধ - ৭

অসমের কোভিড-১৯ পরিস্থিতি নিয়ে আমার ভাবনা

দেবীতমা চক্রবর্তী

ছাত্রী (নবম শ্রেণী), শিলচর

কোভিড-১৯ রোগটি শুরু হয়েছিল চীন থেকে৷ যেহেতু এই রোগটি শুরু হয়েছিল ২০১৯ সাল থেকে৷ তাই তার নাম কোভিড-১৯৷

 

প্রথমে আমরা ভেবেছিলাম এই ভাইরাসটি শীতের দেশে বেশী ছড়ায়৷ কিন্তু ধীরে ধীরে দেখা গেল এই ভাইরাসটি সমস্ত গরম-ঠাণ্ডার দেশে ছড়িয়ে পড়েছে৷ আস্তে আস্তে এটি আমাদের ভারতবর্ষেও চলে আসে৷ প্রথম প্রথম অল্প হলেও পরে এমন ছড়াল যে সারা দেশে লকডাউন দিতে হল আর বলা হল যে অত্যন্ত জরুরী কাজ না থাকলে কেউ যাতে বাড়ির থেকে না বের হয়৷ কিন্তু অনেক মানুষ সেটা মানলো না, তারা বের হতে লাগল যার ফল মহামারিটি আরো বেড়ে গেল আর মৃতু্যর সংখ্যাও বাড়তে লাগল৷ শেষ পর্যন্ত সরকার পুরোনো লোকপ্রিয় সিরিয়াল দিতে লাগল (যেমন— রামায়ণ, মহাভারত ইত্যাদি)৷ যার ফলে সারা দেশের মানুষ এই সবই দেখত আমিও রামায়ণ দেখতাম৷ কিন্তু আমরাও যে দেখতাম আমাদের ইচ্ছায় কারণ তখন পড়াশোনার এতো চাপ ছিল না৷ কিন্তু এক-দুই মাস পর থেকেই শুরু আমাদের Online Class৷ পড়তে পড়তে খুব ক্লান্ত হয়ে যেতাম৷ পড়তে পড়তে এই অবস্থা হল যে আমাদের বাড়িতে টিভি বন্ধ হয়ে গেল৷ তাও আমরা শান্তিতে ছিলাম কারণ তখনও অসমে রোগটি আসেনি, অসম সরকার বলেছিল যে স্কুল-কলেজ আস্তে আস্তে খুলবে৷ কিন্তু সেটা হল না৷Live Online Classes শুরু হয়ে গেল৷ কিন্তু এই রোগের কারণে আমাদের অনেক বন্ধুরা সেটা নিতে পারছিল না৷ কারণ তাদের সেই অর্থনৈতিক অবস্থাই ছিল ন৷ এই দিকে স্কুল-কলেজ খোলার সম্ভবাবনা আরো কমে গেল, যখন অসমে এই রোগটি প্রথম এল আমাদের বারাক উপত্যকার বদরপুর থেকে৷ তার পর থেকে লকডাউন আরো কঠিন হয়ে গেল৷ আর এত কঠিন লকডাউন থাকা সত্বেও এই রোগটি আরো ছড়িয়ে এল৷ এমন অবস্থা হল হাসপাতালে জায়গার অভাব পড়ছিল৷ কিন্তু ভালো কথা এই যে মানুষ এই রোগ থেকে সুস্থ হয়ে যাচ্ছিল৷ কিন্তু অনেক মানুষ যারা এই রোগে আক্রান্ত হননি তারা ভাবলেন যে তারা যদি সেই সেই হাসপাতালগুলোতে যান সুস্থ হওয়ার চেয়ে অসুস্থ হয়ে যাবেন বেশী সেখানের শৌচালয় ব্যবস্থার জন্যে৷ এখন লকডাউন শিথিল হয়েছে, কিন্তু যেহেতু পুজো সামনে তাই সরকার নির্দেশ দিয়েছে যে পুজোগুলো খুব ছোটো এবং অনাড়ম্বর ভাবে করতে৷ এই রোগটি কি কোনোদিন শেষ হবে? আমরা কী আমাদের জীবন আগের মতো জাপন করতে পারব? আসন্ন দুর্গা পুজো উপলক্ষে মায়ের কাছে আমাদের এটাই কামনা৷

Marble Surface

ঈশানের যোগাযোগ

Marble Surface

ঈশান কথার ঠিকানা

BANIPARA

SILCHAR - 788001

ASSAM , INDIA

PHONE : +91 6002483374, 7002482943, 9957196871

EMAIL : ishankotha@gmail.com

Facebook Page : 

https://www.facebook.com/ishankotha

Marble Surface

ঈশান কথায় লেখা পাঠাতে হলে

  1. Whatsapp your Writeup (in Bengali or English) in any of our phone numbers

  2. Email your Article written in MS Word (no pdf file / no image file) in our email id

  3. For Bengali Articles, write with AVRO Software or use any Bengali Unicode Font for Writing in MS Word (No STM software)

  4. You can send the Articles in Bengali or English in Facebook Messenger also to any one the IDs of - Joydeep Bhattacharjee / Krishanu Bhattacharjee / Chinmoy Bhattacharjee /  Page of Ishan Kotha "m.me/ishankotha"

  • Facebook
  • Twitter
  • YouTube
  • Pinterest
  • Instagram
Give Us Your Feedback
Rate UsPretty badNot so goodGoodVery goodAwesomeRate Us

© 2020-21 Ishan Kotha. Site Developed by Krishanu's Solutions