সাহিত্য পত্র

প্রার্থনা

মৃন্ময় রায়

Mrinmoy Roy.jpg

শিব গেছইন শ্বশুরবাড়িত্ 
পরিবারর লগে,
পরের দিনউ আক্তা তান্
টান দিল রগে।
টানর চুটে কইলা তাইন
' বাড়িত্ ফিরি যাই',
কল্ কলাইলা মেনকায়
' কিতা কইন জামাই'।

খাওয়া দাওয়ার করলা তাইন
ডবল আয়োজন,
জামাই তবু খাইলা কম
ভরল না তান্ মন।
ডাকিয়া কইলা পার্বতীরে
'শুন্ চাইন গো উমা,
রাইত বানাইমু আলুর দম,
আলু ক'খান টুমা।
লুচি করমু আর করমু
ছানা দি পায়েস,
জামাইর মুখো সুয়াদ নাই
দুঃখে আমি শেষ।'
দুর্গায় কইন ' কেনে গো মা,
ইতা কেনে কও?'
মনে মনে স্বামীরে কইন
'লইমু আমি,রও'।

টের পাইয়া শিবে দেখইন
ছুটা বড় দায়,
চিন্তা করি বার করলা
একখান উপায়।
বই গেলা তাইন ধ্যানো আর
করলা টেলিপ্যাথি,
বস্তু অখন লাগেউ লাগে
অইন্য সব্তা নেতি।

নন্দী ভৃঙ্গী আক্তা দেখইন্
প্রভুয়ে কররা তাইস্,
ইসারাত্ বুঝাইয়া কইরা
'তাড়াতাড়ি আইছ্'।
মহানন্দে বস্তু তারা 
ভরিলা বুস্কাত্,
মন্ত্রবলে আইয়া কইলা
' বাড়াও প্রভু হাত'।
অদিক হদিক চাইয়া শিবে
ডাকইন কলে কলে,
'নরম করি বানাইছ্ দেখিছ্
পাও যেন না টলে।'

বাগানর চিপার মাঝে 
কি বা কল্কির ধুম্,
ফুর্ ফুরাইয়া বাতাস দের
চাইরবায় নিঃঝুম।
গন্ধ পাইয়া গিরিরাজে
করইন্ ঘুত্ ঘাত্,
শরম পাইলা মেনকায়
মুখো নাই তান্ মাত্।
পার্বতীর মাঝে খালি
নাই ভাবান্তর,
শিবানীয়ে জানইন শিবরে
শিবানী নির্ভর।
উঠানর পুবদিকে
পাতিলা আসন,
আগে দিলা জলছিটা
প্রসন্ন বদন।

এমন সময় আইলা শিব
উড়ে জটাজাল,
লগে আইলা নন্দী ভৃঙ্গী
দিয়া উবা ফাল্।
ডম্রু বাজে, শিঙ্গা বাজে
আর বাজে তালি,
গাল-বাদ্য বাজে তান্
সর্ব অঙ্গে ছালি।
দুলে সর্প, দুলে চন্দ্র
দুলে অঙ্গজ্যোতি,
অপরূপ নৃত্য করইন
ত্রিলোকেরো পতি।
দুই চক্ষু নিমীলিত,
তৃতীয় নয়ন
ধক্ ধক্ করে বুঝি
জ্বলে হুতাশন।
নৃত্যরত নটরাজ
করবা নি তাণ্ডব?
দিকে দিকে সবে তুলে
'হর, হর' রব।
লক্ষ্মী-সারু-গনা-কাতু
রইলা তানে ঘিরি,
মনে মনে স্তব করইন
মেনকা ও গিরি।

ধীরপায়ে অগ্রসর 
অইলা শিবানী,
তান্ কথা জানইন তাইন
শিবে লইবা মানি।
কইলা তাইন মনে মনে
' থামো গো ইবার,
ইটা তুমার শ্বশুরবাড়ি,
রাখিও বিচার।
যেতা কই বুঝি লও
ওগো অন্তর্যামী,
যোগীশ্বর তুমি প্রভু,
তুমার শক্তি আমি।
আও দেখি ওখানো
আসন গ্রহণ কর,
প্রসন্ন অইয়া তুমি
শান্তরূপ ধর।'

শিব- শক্তি বইলা তেউ
দক্ষিণে ও বামে,
ওউ লইয়া ছড়া লেখি
সিলেটি ফোরামে।
কিচ্ছা প্রায় অইল শেষ
বিশেষ নাই  বাকি,
মায়ের নাইয়র বাড়ল তিনদিন
হদিনর থাকি।

জামাই খাইলা পেট ভরি
শ্বাশুড়িমা খুশি,
নাতি নাতল ফুর্তি করইন
কল্কি খালি দুষি।
নন্দীভৃঙ্গী পঞ্চব্যাঞ্জন
খাইলা ঠাসি পেট,
কইলা তারা 
' তালৈ আমরার 
বউত্ বড় শেঠ।
অন্নপূর্ণা মাগো তুমি,
কইরাম তুমার টাইন্
সবে যেন অন্ন পাইন্ মা,
করিও ওটা আইন।
জয় মা, জয় বাবা, 
জয় তালৈ, মাঐ,
রাইত অইছে, চল্ রে ভাই
অখন হুতি রই।