সাহিত্য পত্র

ঋণ

মৈত্রায়ণ চৌধুরী

এখনও আকাশ দ্বিধায় ভুগছে যেন 
সহজ বলার মানুষটি আজ নেই
ছাই হয়ে যাওয়া বিষন্নতার ফাঁকে
হোঁচট খাচ্ছে পরবর্তীর খেই।

কবিতা বেসেছি তোমাকে নিয়ে ভালো
তুমি লেখলেই, অদ্ভুত টানে চোখ
অপেক্ষাদের তাহলে দাঁড়াতে বলি?
ঢাকতে বলছি বিজ্ঞাপনের মুখ।

আমার আশ্রয় কার কাছে আজ যাবে
তপ্ত বিকেলে আমলকী পাতা নাড়া,
মৃত্যুর পর জন্ম আঁকতে শেখালে
ক্লাসঘর জুড়ে  চলবে তোমার পাহারা।

 

ঘোর লেগে থাকা যৌবন দিয়ে ডুব
কুড়িয়ে এনেছে আরাধ্য এক নাম
আলোছায়া মাখা পংক্তি প্রশ্ন রাখে
মস্ত হৃদয় কবিতা নামের গ্রাম?

কবিতার পায়ে কবিই উড়ান নিশান 
বইয়ের পাতাও যেভাবে উড়তে চায়.. 
সেই রাস্তার ঠিকানাটা বলে গেলে
পৌঁছে যাওয়ার থাকবে একটা দায়।

ঝড়ের শব্দে ভেসে যাওয়া পদাবলী 
আখর ভাসানো সত্যভাষীর স্বর,
আসলে তোমার মৃত্যু হয় নি জানি
নাইতে নেমেছে কবিতা নামের জ্বর। 


(কবি শঙ্খ ঘোষ এর মৃত্যু পরবর্তী স্মৃতিভার)