যুব দর্পণ / Youth Affairs

কেন্দ্রীয় সরকার প্রায় তিন দশক পর ঘোষণা করেছেন নতুন শিক্ষানীতি।

যেহেতু ব্যাপারটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ তাই আমরা চেষ্টা করব এই নিয়ে বিদ্বজ্জনের মতামত নেবার।

থাকবে যুব প্রজন্মের দৃষ্টিভঙ্গি।

এই ব্যাপারে প্রথম লেখাটি প্রকাশিত হল এবারের সংস্করণে।

লিখেছেন বি.টেক-এর ছাত্র অনিক চক্রবর্তী।

My thoughts on NEP 2020 ...

Anik Chakraborty, 8 August 2020

  

I strongly welcome the decision of bringing New Education Policy, it deserves a standing ovation. The Govt. Of India have adressed almost all the best major points of criticism in their new policy and they have brought a revolutionary change in the Indian education system. 
 

The first major change in this policy is that earlier our educational system focused to fit the students in three categories after 10th class. Mainly Science, Commerce and Arts-- where students are allowed to choose only subjects of their respective streams. For example, I am a student of science but I have interest in subjects like History,  Indian Polity, but due to rigidity of our educational structure I was not able to pick subject out of my core stream. But NEP 2020 will change this. The students now will have more flexibility to choose their subjects. Upon successful implementation of this policy a student can study Physics with Indian Polity and Chemistry with History. A student can now study science, commerce as well as subjects of arts. This is worthy initiative by Government of India.


The second major change by government is that they have replaced the entire existing 10 + 2 academic structure with 5 + 3 + 3 + 4 system now. This is actually the structure that most of the developed western countries follows. And also most of the developed countries focus on vocational training. The jobs like welders, electrician, carpenter, plumber etc. are viewed at same level as rest of the skilled jobs. But in India these jobs are looked at with disdain. This mind set  needs to be changed. And in view of that, government now seeks to implement some structural changes,  which is press worthy. Students from class 6 will have to do internships in vocational training jobs. And a dynamic change that Government of India has initiated is that coding will begin from class 6 which is in my eyes a very good decision, as coding will be future language.


The third most useful change is self-evaluation of marks by students. Student can now evaluate and analyse their progress in class. Until now our teachers used to assess how the students has performed in the entire year, but now students can do self evaluation. This is very useful change.


Fourth major decision by government is that they have decided to spend at least 6% percent of the GDP on education, right now it is around 3% which is clearly insufficient. 6% is a very good target to achieve keeping in mind that most of the Western countries spend a lot more in their educational field. 


Fifth point is that there was a problem of rote learning in Indian education system. Usually students forget what they have studied in their previous classes because of this inconvenient system. But now Government have decided to change the system and I think exam. pattern should contain objective type questions rather than subjective one, which will emphasis more on concept building and less on memorizing.


Now talking about education after 12 there is a multiple entry and exit programs. It means that if you have started a B.Tech degree and after one year you realise that you don't want to continue with it because you don't like it, so you can drop midway. You can take the credits of all the subjects that you have studied for one year and get it transferred to another degree. This is extremely useful and exists in prestigious institutes like MIT, Stanford University, California University etc. Now if you drop after one year you will get a certificate, if you drop after second year you will get a diploma, if you drop after 3rd year you will get a bachelor's degree. After successful completion of 4 years you will get a Bachelor in Research Degree. This is indeed a very good decision.


Government of India is now going to allow top 100 global institutes to set up the campuses in India,which I think is a great step to boost human resource in a competitive environment.


The last and the most important thing is that, up to class 5 the students will be studying in their regional language which will promote regional language as well as interest of local people.

সামাজিক মাধ্যমের কল্যাণে আমরা প্রায় সবাই আজকাল বিভিন্ন দিবস উদযাপনে অভ্যস্ত হয়ে উঠছি।

অনেকে এসবকে 'ক্রেজ ' বলে নস্যাৎ করতে চাইলেও এতে তেমন দোষের কিছু আছে বলে মনে হয়না।

যদি এসবের মাধ্যমে মানবিক সম্পর্ক গুলো আরো একটু সজীব হয়, তা নিয়ে চর্চা হয়, তবে অসুবিধা কোথায় ?

তাই শুধু জেন এক্স নয় সবার কাছেই গ্রহণযোগ্যতা বাড়ছে এসব দিবসের।

তেমনি গত ৩০ শে জুলাই পালিত হলো 'বিশ্ব বন্ধুতা দিবস' (World Friendship Day)
 কেমন বন্ধুকে আমরা চাই, খূঁজে বেড়াই জীবনভর -তা নিয়ে একটি মরমী লেখনী রইল এবারের যুবদর্পন বিভাগে

অর্পিতা কুশারী র কলমে।

'চাইছি তোমার বন্ধুতা'

অর্পিতা কুশারী , ১ আগস্ট ২০২০ 

  

'বন্ধু' - ছোট একটি শব্দ কিন্তু তার ব্যাপ্তি সীমাহীন। একজন যথার্থ বন্ধু সবটাই  দিতে পারে, বাবা, মা, ভাই, বোন - একটা পরিবারের কাছ থেকে যা যা আমরা পাই, যদিও আজকের ইঁদুর দৌড়ের দুনিয়াতে সেই প্রাপ্তি  লটারি প্রাপ্তির মতো - কজন তা পায়, হাতে গোনা।

 

বন্ধু কজন ? সবাই শুধু পরিচয়ের গন্ডীতেই আটকে থাকে। সবাই খু্ঁজে বেড়ায় বন্ধুত্ব - বন্ধু খুঁজে পায়কি ?


বন্ধুত্ব মানে আমার নিশ্বাস প্রশ্বাসের সাথে জড়িয়ে থাকা কিছু মানুষ। যার কাছে অকপটে মনের আগল খুলে উজাড় করে দেওয়া যায় সব কষ্ট, দুঃখ, অভিমান, রাগ, ব্যার্থতা, হতাশা - যার পরিবর্তে সে নিঃশর্তে নিজের কাঁধ এগিয়ে দেবে, নিঃশব্দে অনুভূতি বিনিময় বা শেয়ারিং এর জন্য।


বন্ধুত্ব তাই - 'sweetest relation' । অনেক সম্পর্কই তাই বন্ধুত্বের সংজ্ঞা ছুঁতে পারেনা, আপাত বন্ধু হয়েই আটকে থাকে। কারণ  নিঃশর্ত বন্ধুত্বের সাথে সততা ও বিশ্বাস এই শব্দগুলো একাকার হয়ে থাকে - আমি যার কাছে  আমার সব আবেগ অনুভূতি ঢেলে দিতে পারি - সে সব ধারন করার যোগ্য তো ?  যদি সে তার যথাযথ সম্মান না দিয়ে আমাকে অন্যের কাছে হেয় করে তোলে ? যদি .......


তাই বন্ধুভাগ্য অধিকাংশের ই অধরা থেকে যায় - কজন পায় কৃষ্ণের সুদামা ? 
 

আবার সেদিক দিয়ে দেখলে এই সম্পর্কটি ভীষন স্পর্শকাতরও বটে। সামাজিক সমস্ত সম্পর্কের মধ্যে যেমনটা পরতে পরতে জড়িয়ে থাকে দেয়া নেয়া, লাভ ক্ষতির স্থূল কিংবা সুক্ষ্ম হিসেব তার বিপরীতে বন্ধুত্ব যেন সব বাঁধন ছেঁড়া একরাশ খোলা হাওয়া। তাঁকে কোন সামাজিক সম্পর্কের নাম দিয়ে, কোন স্বার্থের সাথে জুড়লে তার প্রাণভোমরা কোথায় যেন হারিয়ে যাই। যা পড়ে থাকে তা নেহাৎই একটা সম্পর্ক, আরো পাঁচটা গড়পড়তা সম্পর্কের মতো।


শুধু ভালো সময়ে নয়, জীবনের অন্ধকার দিনগুলোতে বহু চড়াই উৎরাই পেরিয়ে সময়ের কষ্টিপাথরেই কিন্তু যাচাই হয় বন্ধু আর বন্ধুত্ব।আর যার কাছে এমন মূল্যবান রত্ন থাকে সে প্রকৃত অর্থেই ভাগ্যবান।

গল্প - ফেচাই মিয়াঁ 
মেঘদূত সেন , ২৫ জুলাই ২০২০

 

ঈশান কথার যুব দর্পণে শুরু হল আরেকটি নতুন প্রচেষ্টা ...

অডিও ভিসুয়াল মাধ্যমে গল্প পাঠ । ভাষ্যপাঠ লেখকের নিজেরই করা ...

গল্পের নাম ...... ফেচাই মিয়াঁ

লেখক - মেঘদূত সেন ,

সম্পাদক - 'অন্তরীণ' পত্রিকা
ঠিকানা - ভাঙ্গারপার, কাছাড়, আসাম
পেশা - শিক্ষক

Audio Story - Fechai Miyan

 

Story & Narration - Meghdut Sen

 

Editing - Krishanu Bhattacharjee

এই বিভাগের লেখা ও ভিডিও নিয়ে আপনার মতামত

ঈশানের যোগাযোগ

ঈশান কথার ঠিকানা

BANIPARA

SILCHAR - 788001

ASSAM , INDIA

PHONE : +91 6002483374, 7002482943, 9957196871

EMAIL : ishankotha@gmail.com

Facebook Page : 

https://www.facebook.com/ishankotha

ঈশান কথায় লেখা পাঠাতে হলে

  1. Whatsapp your Writeup (in Bengali or English) in any of our phone numbers

  2. Email your Article written in MS Word (no pdf file / no image file) in our email id

  3. For Bengali Articles, write with AVRO Software or use any Bengali Unicode Font for Writing in MS Word (No STM software)

  4. You can send the Articles in Bengali or English in Facebook Messenger also to any one the IDs of - Joydeep Bhattacharjee / Krishanu Bhattacharjee / Chinmoy Bhattacharjee /  Page of Ishan Kotha "m.me/ishankotha"

  • Facebook
  • Twitter
  • YouTube
  • Pinterest
  • Instagram
Give Us Your Feedback
Rate UsPretty badNot so goodGoodVery goodAwesomeRate Us

© 2020-21 by Ishan Kotha. Site Developed by CHIPSS